: প্রস্তাবিত

BDT 190,000 রোড মূল্য

ঢাকা

Thakerotte Hossen
  • 16,000 কিলোমিটার

10 year Digital paperwork.

BDT 185,000 মূল্য পরিবর্তনশীল

ঢাকা

Shourov Hossain
  • 35 কিলোমিটার

Yamaha FZS Limited Edition (Blue) Model Year : 2013 Registration Year : 2014 Displacement : 153 cc No. of Gears : 5 Fuel Tank Capacity : 12.00 litres Millage : 35 KM/Liter (100% Accurate) Dhaka M...

BDT 235,000

কুমিল্লা

Qtaiyoush 3143
  • 6,300 কিলোমিটার

Comilla r number Name Trunsfer Possible 5 month used

BDT 225,000 ড্রাইভ আও্যে

ঢাকা

Rahman Chym
  • 29,800 কিলোমিটার

Bought the bike on 04-04-2015, haven't change any parts of it, only front and rear Tyre i have changed because it's already reach the maximum usage. all other parts of the bike is orginal as i b...

ফলাফল হালনাগাদ করুন
বাংলাদেশে ইয়ামাহা এফজেড-এস বিক্রয়

বাংলাদেশে ইয়ামাহা এফজেড-এস বিক্রয়

ইয়ামাহা এফজেড-এস বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ইয়ামাহা মডেলগুলোর মধ্যে একটি। এফজেড-এস ইয়ামাহা এফজেড সিরিজের একটি বিশেষ ভার্সন আর একে তৈরি করে ইয়ামাহা মটরস এর ভারতীয় সাবসিডিয়ারি। ইটা প্রথম বাজারজাত হয় ২০০৮ সালে। এই মডেল বাজারে আসার পর থেকে এটা বাংলাদেশে ১৫০ সিসি সেগমেন্টের সবচেয়ে জনপ্রিয় বাইক হয়ে ওঠে। এফজেড-এস এর ২টি ভ্যারিয়েন্ট আছে: এফজেড-এস ভার্সন ১ আর এফজেড-এস ভার্সন ২। বাজারে এই ২টিই উপলব্ধ। তরুণ প্রজন্ম, বিশেষ করে ছাত্ররা আর কর্পোরেট মানুষজন এই মডেলটা খুব পছন্দ করেন। ইয়ামাহার মতে, তাদের সেল্স অনেক দ্রুত বেড়ে গিয়েছে এফজেড-এস এর নতুন ভ্যারিয়েন্ট বাজারে আসার পর থেকে। ইয়ামাহা এই উপমহাদেশের তরুণ প্রজন্মকে টার্গেট করে, বিশেষ করে ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সের মানুষদের।

এফজেড-এস সিরিজের প্রবর্তন হবার পর থেকে এই মডেল পারফরমেন্স আর লুকস এর জন্য বিভিন্ন সম্মানীয় পুরস্কার জিয়ে নিয়েছে। এই মডেলের নতুন ভার্সন ১৪% বাড়তি মাইলেজ দেয়। বাংলাদেশের বাজারে এটা প্রতিযোগিতা করে সুজুকি জিক্সার, হোন্ডা ইউনিকর্ন, বাজাজ পালসার, হিরো হানক, আর টিভিএস অ্যাপাচি সাথে।

ইয়ামাহা এফজেড-এস রিভিউ

ইয়ামাহা এফজেড-এস স্পেসিফিকেশন

এফজেড-এস এর আছে চমৎকার একটি সিঙ্গেল সিলিন্ডার, ১৫৩ সিসি এসওএইচসি ইঞ্জিন যার সাথে আছে ৪ স্ট্রোক আর এয়ার কুলিং এর সুবিধা। এটার ইঞ্জিন থেকে সর্বোচ্চ পাওয়ার উৎপাদন হয় ১২.৯ বিএইচপি, ৮০০০ আরপিএম এ। এটার সর্বোচ্চ টর্ক ১২.৮ নিউটন মিটার যেটা উৎপাদন হয় ৬০০০ আরপিএম এ। এই বাইকটির আছে ৫ স্পিড গিয়ারবক্স যেটার একটা গিয়ার্ নিচে আর ৪টা গিয়ার আপ-শিফট প্যাটার্নে। এটার ইঞ্জিন খুবই শান্ত আর কোনো কর্কশ কম্পন নেই। এটার সর্বোচ্চ গতি ১১২ কিলোমিটার/ঘন্টা। এটার মাইলেজ অন্যান্য ভারতীয় ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেলদের মত উন্নত না। শহুরে ট্রাফিকে আপনি পাবেন ৪০ কিলোমিটার/লিটার আর মহাসড়কে ৫০ কিলোমিটার/লিটার। তাহলে গড় মাইলেজ এসে দাড়ায় ৪৫ কিলোমিটার/লিটার এ. এই বাইকে আছে ডিস্ক ব্রেক সিস্টেম, ১৩০ মিমি পেছনের চাকায় আর ২৬৭ মিমি সামনের চাকায়।

ইয়ামাহা এফজেড-এস ডিসাইন

এটার রিমে আছে রেসি স্ট্রাইপস আর এটার কালার স্কিম আপনি পাবেন ডুয়াল টোনে। এটার স্পীডোমিটার পুরোপুরি ডিজিটাল আর এটার অডোমিটার, ট্রিপ মিটার আর ফুয়েল গজে আছে এলইডি ইনডিকেটর। বাইকতার আছে রিয়ার সেট ফুট পেগ আর চওড়া নতুন সীট যেটা বাইকটাকে আগের থেকে আরও আরামদায়ক বানিয়ে তোলে। এটা ৪টি ভিন্ন শেডে উপলব্ধ: মুন ওয়াক ওয়াইট, এসট্রাল ব্লু, মল্টেন অরেঞ্জ আর সাইবার গ্রীন।

ইয়ামাহা এফজেড-এস ফীচার্স

এই বাইকটিতে সব রকম স্ট্যান্ডার্ড নিরাপত্তা ফীচার্স আছে, কিন্তু কোনো স্টোরেজ স্পেস নেই। ইয়ামাহা দাবি করে যে এফজেড-এস বাজারের সবচেয়ে হালকা ১৫০ সিসি বাইক। লেটেস্ট ব্লু কোর প্রযুক্তি বাইকটার মাইলেজ আরও উন্নত করে।

বাংলাদেশে ইয়ামাহা এফজেড-এস এর মূল্য

ভারত থেকে ব্র্যান্ড নিউ ইয়ামাহা মোটরসাইকেল আমদানি করে কর্ণফুলী মটরস। আগে ইয়ামাহা মোটরসাইকেল জাপান থেকে সরাসরি বাংলাদেশে প্রবেশ করতো। নতুন মডেলের মূল্য সবসময়েই বেশি। নতুন এফজেড-এস এর দাম পড়বে ২,৫০,০০০ টাকা। পুরনো মডেল বা ব্যবহৃত এফজেড-এস এর দাম অবশ্যই তার থেকে কম। বাংলাদেশে কারমুডির লিস্টিং অনুযায়ী এফজেড-এস এর প্রতাশিত মূল্য নিচে দেয়া রইলো:

ইয়ামাহা এফজেড-এস ২০১৫ মূল্য: নতুন- ২,৫০,০০০ টাকা; ব্যবহৃত- ২,৩০,০০০ টাকা

ইয়ামাহা এফজেড-এস ২০১৪ মূল্য: নতুন- ২,৪০,০০০ টাকা; ব্যবহৃত- ১,৭০,০০০ থেকে ২,৪০,০০০ টাকা

ইয়ামাহা এফজেড-এস ২০১৩ মূল্য: ব্যবহৃত- ১,৮০,০০০ থেকে ২,২০,০০০ টাকা

ইয়ামাহা এফজেড-এস ২০১২ মূল্য: ব্যবহৃত- ১,৪০,০০০ থেকে ২,১০,০০০ টাকা

কেন কিনবেন ইয়ামাহা এফজেড-এস?

এটার ইঞ্জিন ও ডিসাইন ১৫০ সিসির মোটরসাইকেল ক্যাটাগরিতে একেবারে উত্কৃষ্ট আর এটাকে বলা হয় “লর্ড অফ দ্য স্ট্রিট”। বাইকটা অনেক আরামদায়ক আর হ্যান্ডেল করা অনেক সহজ। এটার আছে ট্রিপল মাচো কনসেপ্ট: পেশীবহুল অবয়ব, পেশীবহুল বডি পার্টস আর পেশীবহুল চেসিস। এই সব গুলই রাস্তায় এটার পারফরমেন্স এর দৃশ্যমান প্রতিফলন।