: প্রস্তাবিত

BDT 27,000 মূল্য পরিবর্তনশীল

Dendabor

Sazzad Hossain
  • 35 কিলোমিটার

garita onek soft and comfortable ...garitar engine ta onek valo onek drutto gari tan tulte pare ,,, garitar head light modify korano .. liter a 35 km jai

ফলাফল হালনাগাদ করুন
ওয়াল্টন মোটরসাইকেল বিক্রয়

বাংলাদেশে ওয়াল্টন মোটরসাইকেল বিক্রয়

সাধারণত বাংলাদেশের অধিকাংশ মোটরসাইকেল পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, চীন কিংবা জাপান থেকে আমদানি করা হয়ে থাকে। তবে এখন বাংলাদেশেও কিছু মোটরসাইকেল যেমন সিঙ্গার কিংবা ওয়াল্টন ইত্যাদি তৈরি হচ্ছে। বাংলাদেশী ব্র্যান্ড ওয়াল্টন মোটরসাইকেল গুলো তৈরি করে ওয়াল্টন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড। ওয়াল্টন বাংলাদেশে ইলেকট্রনিকস পণ্য তৈরি করে আসছে ১৯৭৭ সাল থেকে। এদের তৈরি পণ্য সমূহ দেশে বিদেশে সফলতা লাভ করেছে এবং গত কয়েক বছর যাবত তারা ৮০সিসি এবং ১০০সিসি ইঞ্জিনের মোটরসাইকেল প্রস্তুত করে বাজারজাত করেছে।

বাজারে আবির্ভাবের কয়েক বছরের মধ্যেই ওয়াল্টন ইতোমধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। গত কয়েক বছরে ওয়াল্টন মোটরসাইকেলের বিক্রির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বাজারে প্রতিনিয়ত অন্যান্য ব্র্যান্ড যেমন ইয়ামাহা, বাজাজ, হিরো, টিভিএস, হোন্ডা এবং সুজুকি ইত্যাদির সাথে প্রতিযোগিতা করে চলেছে। দেশের বাজারে মোটরসাইকেল বিক্রির পাশাপাশি ওয়াল্টন এখন বিদেশেও রফতানি হচ্ছে। কোম্পানিটি বর্তমানে বছরে ৩ লক্ষ মোটরসাইকেল তৈরি করার ক্ষমতা রাখে।

ওয়াল্টন মোটরসাইকেলের প্রযুক্তি এবং বৈশিষ্ট্য

ওয়াল্টন তাদের মোটরসাইকেলে আধুনিক সব প্রযুক্তি ব্যবহার করছে এবং সেই সাথে দিচ্ছে নানা ধরণের সুবিধা। তাদের মোটরসাইকেলে ব্যবহৃত হচ্ছে ই-থ্রি ইঞ্জিন যা একদিকে ইঞ্জিনকে দেয় বেশি ক্ষমতা অন্যদিকে জ্বালানি খরচও কমায়। এছাড়া কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে ওয়াল্টন মোটরসাইকেলে যেমন ডিজিটাল গিয়ারবক্স, শক শোষণ ক্ষমতা, জ্বালানির মিটার, মোবাইল ফোন ইনডিকেটর, হাইড্রলিক ব্রেক, রিমোট ব্রেক এবং এন্টি থেফট সিস্টেম ইত্যাদি। তাদের মোটরবাইকে সুরক্ষা ব্যবস্থার অংশ হিসেবে ভয়েস অ্যালার্ম সিস্টেমও সংযুক্ত রয়েছে যা বাংলাদেশের ক্ষেত্রে খুবই যুগোপযোগী।   

বাংলাদেশে ওয়াল্টন মোটরসাইকেলের জনপ্রিয় মডেল সমূহ

ওয়াল্টন্ মোটরসাইকেল ব্র্যান্ডের যেসকল মডেল বাংলাদেশে জনপ্রিয় সেগুলো নিচে তুলে ধরা হলো।

ওয়াল্টন এক্সপ্লোর – এই সিরিজের মোটরসাইকেল গুলো দুই ধরণের ইঞ্জিনে পাওয়া যায় এবং এদের বাহ্যিক লুক মোটামুটি একই। ১৪০সিসি এবং ১২৫সিসি উভয় মোটরসাইকেলে একটি সিলিন্ডার এবং ৪-স্ট্রোক বিশিষ্ট ইঞ্জিন রয়েছে এবং ইলেকট্রিক ও কিক স্টার্টের সুবিধা রয়েছে।

ওয়াল্টন ফিউশন – এই মডেলের মোটরসাইকেল গুলোর অনেক ভার্সন বাজারে পাওয়া যায়। বর্তমানে ৪ ধরণের ফিউশন মোটরসাইকেল রয়েছে যাদের ইঞ্জিন ভিন্ন ভিন্ন। ফিউশন ১২৫ এবং ফিউশন ১১০ এর সর্বশেষ মডেল দুইটি হচ্ছে যথাক্রমে ফিউশন ১২৫ ইএক্স এবং ফিউশন ১১০ ইএক্স যাদের বডি ডিজাইন আগের গুলি থেকে কিছুটা আলাদা এবং স্টাইলিশ।

ওয়াল্টন ক্রুইজ – ওয়াল্টনের এই মডেলটির রয়েছে ১০০সিসি ইঞ্জিন এবং এর জ্বালানি তেলের ট্যাংকের ধারণ ক্ষমতা হচ্ছে ১৫ লিটার। অন্যান্য সুবিধা সমূহ যেমন সেলফ স্টার্ট এবং কিক স্টার্ট, ড্রাম ব্রেক সিস্টেম ইত্যাদি রয়েছে এই মডেলটিতে।

ওয়াল্টন লিও – এটি একটি কম শক্তির ইঞ্জিন বিশিষ্ট মোটরসাইকেল যেখানে সব ধরণের সুবিধা চালকরা পাবেন। ৮০সিসি ইঞ্জিনটি সম্প্রতি ৮৬সিসি ইঞ্জিনে উন্নীত করা হয়েছে।

ওয়াল্টনের এই মডেল গুলোর পাশাপাশি বাজারে আরও কিছু মডেল যেমন স্টাইলেক্স, প্রিজম এবং রেঞ্জার ইত্যাদিও তৈরি এবং বাজারজাত করে থাকে।

বাংলাদেশে ওয়াল্টন মোটরসাইকেলের দাম এবং প্রাপ্যতা

যদিও ওয়াল্টন মোটরসাইকেল এখন বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি হচ্ছে, বাংলাদেশেও এই ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল গুলো সহজলভ্য। কোম্পানিটি তাদের বাইকগুলো এমন ভাবে তৈরি এবং দাম নির্ধারণ করেছে যাতে করে সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের হাতের নাগালে থাকে। বাংলাদেশের সকল জেলা কিংবা উপজেলা পর্যায়ে ওয়াল্টনের শোরুম রয়েছে। তাই কোম্পানির জন্য মানুষের কাছে পৌঁছান খুবই সহজ হয়ে গেছে।

আপনি আপনার চাহিদা এবং বাজেটের ভিতর ওয়াল্টনের যেকোন মডেল পছন্দ করে কিনতে পারবেন। আপনি মাত্র ৪২ হাজার টাকায় ওয়াল্টন ব্র্যান্ডের একটি মোটরসাইকেল কিনতে পারবেন। তবে নতুন মডেল এবং উন্নত কনফিগারেশন হলে আপনাকে কিছুটা বেশি খরচ করতেই হবে। তবে ওয়াল্টন মোটরসাইকেলের দাম বাজারের অন্যান্য যেকোন ব্র্যান্ডের তুলনায় কম এবং সেটি ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকার মধ্যে।

কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

বাংলাদেশী মোটরসাইকেল ব্র্যান্ড হিসেবে ওয়াল্টন ইতোমধ্যে একটি নতুন যুগের সূচনা করেছে। তারাই প্রথম বাংলাদেশে রিমোট কন্ট্রোলসহ মোটরসাইকেল তৈরি করেছে এবং মোটরসাইকেল চুরি হওয়া রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে যা দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে খুবই যুগোপযোগী বলে মনে করা হয়।