: প্রস্তাবিত

BDT 1,785,000 মূল্য পরিবর্তনশীল

ঢাকা

Car Museum
  • 56,000 কিলোমিটার

Toyota Celica,model 2000,reg 2007, color red, all auto ac cool,SPORTS VERSION,CC 1800

ফলাফল হালনাগাদ করুন
বাংলাদেশে টয়োটা সেলিকা বিক্রয়

বাংলাদেশে টয়োটা সেলিকা বিক্রয়

জাপানি কোম্পানি টয়োটা তাদের বিখ্যাত স্পোর্টস কম্প্যাক্ট গাড়ি টয়োটা সেলিকা ১৯৭০ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত উৎপাদন করে গিয়েছে এবং সেই সময়ের মাঝে তারা সাতটি ভিন্ন প্রজন্ম উদ্ভাবন করেছে। সেলিকা শব্দটি এসেছে ল্যাটিন ‘সেলিকা’ থেকে যার অর্থ “স্বর্গীয়”। সেলিকা ছিল টয়োটার প্রথম স্টাইলিং এবং চালানো বর্ধন করার গাড়িগুলোর একটি। এটি লিফট ব্যাক, নচব্যাক কূপ, এবং কনভারটিবল মডেলে পাওয়া যেত। সেলিকা অনেক গাড়ির ডিজাইনে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে, যেমন টয়োটা সুপ্রা। টয়োটার তৈরি অন্যতম জনপ্রিয় গাড়ি সেলিকা, যার উৎপাদন বন্ধের ৭ বছর পরেও কিনা সেলিকা ভক্তরা জিজ্ঞেস করে টয়োটা নতুন সেলিকা মডেল উন্মোচিত করবে কিনা!

টয়োটা সেলিকা রিভিউ

টয়োটা সেলিকা ইঞ্জিন বিস্তারিত

সেলিকা তার মেয়াদকাল ধরে ভিন্ন ভিন্ন চার-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত হয়েছে। এটি তার ড্রাইভিং লে-আউট রিয়ার হুইল ড্রাইভ থেকে ফ্রন্ট হুইল ড্রাইভে পরিবর্তন করেছে। সপ্তম এবং সর্বশেষ প্রজন্মের সেলিকা (১৯৯৯ থেকে ২০০৬) দুটো ভিন্ন মডেল থেকে বেছে নিতে দেয় – জিটি এবং জিটি-এস। সাধারণ সেলিকা একটি ডিওএইচসি ১৬-ভাল্ভ ইঞ্জিন সহ আগ্রাসী ভিভিটি-আই ইলেক্ট্রনিকালি ভ্যারিয়েবল ভাল্ভ-টাইমিং-এন্ড লিফট স্কিম ব্যবহার করে। জিটি মডেলটির আছে একটি ১.৮লিটার (প্রায় ১৭৯৪ সিসি) ইঞ্জিন যা কিনা ১৪০ হর্সপাওয়ার ও ১২৫ টর্ক উৎপাদন করে এবং একটি ৫-স্পিড ম্যানুয়াল গিয়ারবক্স। জিটি-এসের শক্তিশালি ১.৮লিটার ইঞ্জিন ১৮০ হর্সপাওয়ার১২২ টর্ক উৎপাদন করে থাকে তার ৬-স্পিড ম্যানুয়াল গিয়ারবক্স দিয়ে। দুটো মডেলেরই ৪-স্পিড অটোম্যাটিক ট্রান্সমিশন বেছে নেবার সুযোগ আছে। এর সর্বোচ্চ গতি হচ্ছে ২০৪ কিমি যা কিনা অবিশ্বাস্য এবং ০-১০০ কিমি মাত্র ৮.৭ সেকেন্ডে তুলতে সক্ষম। এর জ্বালানী খরচ (শহর এবং হাইওয়েতে) গ্যালনে ৩৭ মাইল

টয়োটা সেলিকা ডিজাইন

টয়োটা সেলিকা একটি দুই দরজার গাড়ি যা কিনা তার স্পোর্টি ভাব দেখাতে কোন কার্পণ্য করেনা। এটির তিন-স্পোক চাকাগুলো এবং ড্রিল করা মেটাল পেডালগুলো এক দৃঢ়, স্পোর্টি মনোভাব প্রকাশ করে। এর অন্দর কার্যকর, স্টাইলিশ এবং ২+২ কনফিগারেশনে লাগেজ সহ পূর্ণবয়স্ক প্যাসেঞ্জার আরামের সঙ্গে বহন করতে পারবে। এবং ভেতরে পিছনের প্যাসেঞ্জারদের জন্য যথেষ্ট পা রাখার জায়গা আছে, যদিও মাথা রাখার জায়গা প্রিমিয়াম সেলিকার জন্য কেবল বরাদ্দ। এর সাধারণ, নিচুগামী ড্যাশ লে-আউটে ড্রিল করে রাখা আছে মেটাল পেডাল, স্পোর্টি বাকেট সিট, বড় অ্যানালগ গেজ, এবং আকর্ষণীয় মেটালিক সিলভার ডিজাইন যা কিনা সেলিকার ককপিটের আবহ আরো উচ্চমাত্রার করে তোলে। যদিও এটি ছোট একটি কূপ, এটির ভাঁজ করে রাখা রিয়ার সিট যথেষ্ট লাগেজ রাখার জায়গা প্রদান করতে সক্ষম।

টয়োটা সেলিকা বৈশিষ্ট্য

সেলিকা সাধারণত বহন কর থাকে এবিএস, টুইন ফ্রন্ট এবং সাইড এয়ারব্যাগ, স্টেরিও, ইলেক্ট্রিক উইন্ডো এবং মিরর, রিমোট সেন্ট্রাল লকিং, লেদার স্টিয়ারিং হুইল, এবং ১৬” এলয় হুইল। উচ্চমূল্যর ‘প্রিমিয়াম প্যাক’ আপনাকে বাড়তি ক্লাইমেট কন্ট্রোল এবং পাওয়ার সানরুফ দেবে। স্পোর্টস কার ভক্তদের খুশি রাখতে ‘স্পোর্টস প্যাক’ পাওয়া যায় যা কিনা আরো বড় ১৭” এলয় হুইল এবং স্পয়লার প্রদান করে।

বাংলাদেশে টয়োটা সেলিকার মূল্য

বাংলাদেশের জনগণ সবসময়ই ব্যক্তিগত গাড়ির চেয়ে পারিবারিক গাড়ি বেছে নিয়েছে। এই কারনে বাংলাদেশে টয়োটা সেলিকা অত একটা দেখা যেত না। একই সময়ে, টয়োটা ২০০৬ সালে উৎপাদন বন্ধ করে দিয়েছিলো সেলিকার। তাই আপনি কেবলমাত্র ব্যবহৃত কিংবা রি-কন্ডিশন্ড টয়োটা সেলিকা কিনতে পারবেন। বাংলাদেশে টয়োটা সেলিকার মূল্য ২০ লক্ষ টাকা থেকে শুরু হয়ে থাকে কারমুডির লিস্টিং অনুযায়ী এবং মূল্য পরিবর্তন হতে পারে।

টয়োটা সেলিকা জিটিএস ১৯৯৯ দাম: ব্যবহৃত- ২১ লক্ষ টাকা

কেন আপনি টয়োটা সেলিকা কিনবেন?

সেলিকা একটি ক্লাসিক টয়োটা গাড়ি এবং এটি আজীবন তার মালিকদের ভালবাসা পেয়ে এসেছে। টয়োটার অতুলনীয় নির্ভরতার সাথে সাথে হাল্কা ওজনের সেলিকা মারাত্মক হ্যান্ডলিং প্রদান করে থাকে কম গতিতে নিম্নমানের রাস্তায় তার ক্ষিপ্র রিফ্লেক্সের কারনে। একটি দুই দরজার স্পোর্টস গাড়িতে পেছনের সিট থাকার যৌক্তিকতা আপনি প্রশ্ন করতে পারেন, কিন্তু এর কারিগরি কৌশল,  রক্ষনাবেক্ষনের অল্প খরচ, এবং জ্বালানী সাশ্রয়ী বেশিরভাগ ক্রেতার চাহিদার উপরের দিকে সেলিকাকে পৌছে দেয়। টয়োটা সেলিকার বিকল্প হিসেবে আছে মাজদা এক্সেলা, মাজদা আরএক্স ৭, মাজদা আরএক্স ৮, হোন্ডা সিভিক, নিশান স্কাইলাইন, এবং টয়োটা সুপ্রা। টয়োটা সেলিকা আপনার জন্য সেরা বাছাই হবে যদি আপনি একটি ভাল, নির্ভরশীল গাড়ি চান যা কিনা সাধারণ জাপানি সেডানের চাইতে এসব বাড়তি সুবিধা দেবে, কারন এর আছে:

  • অত্যাধুনিক স্টাইল
  • স্বল্প ভরনপোষণ
  • অতিসুক্ষ স্টিয়ারিং
  • শক্তিশালি ব্রেক সহ নির্ভুল হ্যান্ডলিং
  • মজবুত এবং স্টাইলিশ কাঠামো